শুক্রবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং, বিকাল ৩:১৭
শিরোনাম :
বিশ্বে এখন করোনায় আতংকিত একদিনেই ১২ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি..! বাংলাদেশ সাংবাদিক ও সংবাদপত্র ঐক্য পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটির গঠন ! সভাপতি রেদওয়ান সিকদার রনি ও সাধারণ সম্পাদক আবুবকর সিদ্দীক বরিশাল বিএম কলেজের নতুন অধ্যক্ষ জিয়াউল হক মুলাদীতে প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান মিঠু খান বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে চলচ্চিত্র ‘একজন মহান পিতা’ বরিশালে বঙ্গবন্ধু T20 তে দল রাখাতে ফরচুন সুজ কোম্পানীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে লাভ ফর ফ্রেন্ডস ঢাবি ভর্তি পরীক্ষা বিভাগীয় শহরে, এমসিকিউ ৪০ লিখিত ৪০ বরিশালে হাতেম আলী কলেজ ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টের শুভ উদ্ভোধন সম্পন্ন আতশ বাজির মধ্যে দিয়ে মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক এর জন্মদিন কেক কেটে পালন করলেন ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান মিঠু খান কে বাটামারা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নবাগত কমিটির ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময়

আরও ২ হাজার চিকিৎসক নেওয়ার পরিকল্পনা

বিজলী ডেক্স:

করোনাভাইরাসে চিকিৎসার গতি আরও বাড়াতে দ্রুত আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের পরিকল্পনা করছে সরকার। এটি হলে করোনায় আরও ২ হাজার নতুন চিকিৎসক নিয়োগ পাবেন। এতে করোনার কারণে নিয়োগ পেতে যাচ্ছেন ৪ হাজার চিকিৎসক।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, এতে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি আছে। তাঁরা এ জন্য কাজ শুরু করেছেন। ৩৯তম বিসিএসের অপেক্ষমাণ তালিকা থেকেই এসব চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়াকেই সহজ সমাধান বলে মনে করছে সরকার।

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় চিকিৎসক সংকটের কারণে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে সরকার। প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনায় মৃত্য ও আক্রান্তের সংখ্যা। এরই মধ্য দেশের বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসকেরা অনেকে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ অবস্থায় পরিস্থিতি মোকাবেলের জন্য নতুন আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের কথা অনেটাই চূড়ান্ত করছে সরকার।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা আলোকে বলেন, নতুভাবে চিকিৎসক নিয়োগ দিতে গেলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, কয়েকদফা পরীক্ষার আয়োজন করতে হবে। যা সময় সাপেক্ষ। সেই অবস্থাও এখন নেই। দেশে এখন চিকিৎসক সংকট। এই বিশেষ সংকটের সময় জাতীয় স্বার্থের কথা বিবেচনা করে ৩৯তম বিশেষ বিসিএসের অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে মেধার ভিত্তিতে আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া হবে।

পিএসসি জানায়, ২০১৮ সালে ১০ এপ্রিল ৩৯তম বিশেষ বিসিএসের আবেদন কার্যক্রম শুরু হয়, শেষ হয় ৩০ এপ্রিল। পরে ওই বছরের ৩ আগস্ট এই বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়, এতে ৩৭ হাজার ৫৮৩ জন অংশ নেন। পরীক্ষায় পাস করেন মোট ১৩ হাজার ৭৫০ জন চিকিৎসক। এর মধ্যে সহকারী সার্জন পদে ১৩ হাজার ২১৯ চিকিৎসক ও ৫৩১ জন সহকারী ডেন্টাল সার্জন পদে উত্তীর্ণ হন। এখানে আট হাজারের বেশ চিকিৎসক অপেক্ষমান তালিকায় থাকে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দ্রুত গতিতে নতুন ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দিতে কার্যক্রম শুরু করেছে। অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেয়েছেন তাঁরা। এটি নিয়ে কাজ করছেন।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান প্রথম আলোকে বলেন, আমরা আরও ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের কাজ করতে চাই। এতে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি আছে। এখন ৩৯তমে বিশেষ বিসিএসের অপেক্ষমাণ তালিকা থেকেই এই নতুন ২ হাজার নিযোগ দেওয়ার বিষয়ে কাজ করছে সরকার। আমরা কিছু আনুষ্ঠানিকতার কাজ করছি। পদ তৈরি করা, নতুন চিকিৎসকের বেতন দেওয়া এসবের জন্য অর্থ ও জনপ্রসাশন মন্ত্রণালয় এবং পিএসসির কিছু কাজ আছে। এসব কাজ দ্রুত সময়ে করা হচ্ছে। শিগগিরই তাঁদের নিয়োগ করা হবে। বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রচুর স্বাস্থ্যকর্মী দরকার বলেও জানান তিনি।

চিকিৎসক নিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে জনপ্রসাশন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, এই কাজটা মূলত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও পিএসসি করবে। তাঁদের কাছে এ সংক্রান্ত অনুমতি চাওয়া হলে তারা এটি দ্রুত অনুমোদনের ব্যবস্থা নেবেন।

৩৯ বিশেষ বিসিএস থেকে চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া প্রস্তাব করেছিল চিকিৎসকদর সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যসোসিয়েশন (বিএমএ)। সংগঠনটির মহাসচিব ইহতেশামুল হক চৌধুরী সম্পতি এ সংক্রান্ত প্রস্তাবনা সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে দিয়েছে। তিনি জানান, ৩৯তম বিশেষ বিসিএস থেকে মেধার ভিত্তিতে চিকিৎসক নেওয়া যেতে পারে। তাঁদের নিয়োগ দেওয়ার বিষয়টি সহজ বলে মনে করেন তিনি।

৩৯তম বিশেষ বিসিএসে পাশ করে অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা চিকিৎসক রাফা বিনতে নূর বলেন, আমরা ৩৯তম বিশেষ বিসিএসে পাশ করেছি। দেশের এই পরিস্থিতিতে আমাদের নিয়োগ দেওয়া হলে আমরা দেশের জন্য কাজ করতে পারব। অন্য চিকিৎসকদের ওপর চাপ কমে আসবে ও মানুষ চিকিৎসা বঞ্চিত হবে না। এ ছাড়া আমাদের কর্ম সংস্থান হলে অনেক পরিবার উপকৃত হবে।