রবিবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ১১:৪৮
শিরোনাম :
নেছারাবাদ সাগরকান্দার কুখ্যাত ডাকাত রুবেল খুলনায় আটক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ডাক্তারের অবহেলায় নবজাতক মৃত্যুর অভিযোগ জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে নারী সমাবেশ ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষ‍্যে নেছারাবাদ উপজেলায় মতবিনিময় সভা বরিশালে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহিদ দিবসের কর্মসূচি প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে আশ্রয় নিল ১৪ মিয়ানমার সেনা জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে মারার দল বিএনপি: শেখ ফজলে শামস পরশ বিআইডব্লিউটিএ’র গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে সার্ভিসের সাতটি ইউনিট অগ্রণী ব্যাংক ৯৭৫ তম রায়পুরা শাখার উদ্বোধন আসন্ন রায়পুরা পৌরসভা নির্বাচনে ২নং ওয়ার্ডে মোঃ বাহাউদ্দীনকে কাউন্সিলর করতে চান “ওয়ার্ডবাসী”

ভূমি অফিসের ষ্টাফ কোয়াটার এখন ময়লার ভাগাড় কলাপাড়ারায়

 ডেক্স রিপোর্টঃ

পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌর শহরের ভূমি অফিসের ষ্টাফ কোয়াটার এখন শহরের ডাষ্টবিন হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। শহরের প্রানকেন্দ্রে সরকারি এ স্থাপনার সামনে ও পিছনে ময়লা, আবর্জণার স্তুপ জমা হওয়ায় গোটা এলাকাটি ডেঙ্গুর ঘরে পরিনত হয়েছে। এ ষ্টাফ কোয়াটার সংলগ্ন ভূমি অফিস, কলাপাড়া থানা, প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ক্লাব, সাবরেজিষ্ট্রি অফিস, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বহু সরকারি-বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকলেও এ ময়লা অপসারণে কোন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। তবে ভূমি প্রশাসন বলছে শহরের সবাই এখানে ময়লা ফেলছে এবং বাথরুম হিসেবে ব্যবহার করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত এ ময়লা আবর্জনা ফেলা বন্ধে উদ্যোগ নেয়া হবে।
কলাপাড়া পৌর শহরের শহীদ সুরেন্দ্র মোহন চৌধুরী সড়কের ভূমি অফিসের এ ষ্টাফ কোয়াটার সড়কের সামনে দিয়ে প্রতিদিন খেপুপাড়া সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ইসমাইল তালুকদার টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের দুই সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রীসহ গুরুত্বপূর্ণ থানা, ভূমি অফিস ও প্রেসক্লাবে আসা অন্তত অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ চলাচল করে। শহরের প্রানকেন্দ্রে টয়লেট না থাকায় একটু নিরিবিলি স্থান দেখে বেশিরভাগ মানুষ এখানে মূত্রত্যাগ করছে। এ ছাড়া শহরের এক শ্রেণির ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীরা তাদের অবিক্রিত ও পঁচা মালামাল এ ষ্টাফ কোয়াটারের খালি জায়গায় ফেলার কারণে গোটা এলাকায় পঁচা দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। সৃষ্টি হয়েছে ডেঙ্গুর মশার ঘর।
এ সড়ক পথে চলতে গিয়ে স্কুল শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষকে নাক,মুখ চেপে চলাচল করতে হচ্ছে। এ ষ্টাফ কোয়াটারে ডেঙ্গুর ঘরে ভূমি অফিসের ষ্টাফরা থাকলেও তারাও এ ময়লা অপসারনে কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না। এ ছাড়া ভূমি অফিসের কোয়াটারের পিছনে পুকুরগুলো এখন ডোবায় পরিনত হয়েছে। পুকুর, ডোবায় কচুড়িপানা সৃষ্টি হওয়ায় সেখানেও মশা,মাছি কিলকিল করছে। এমনকি গোটা ক্যাম্পাসে একাধিক গর্ত ও লেট্রিনের ডেঙ্গুর রিংয়ের মধ্যে কিলকিল করছে জীবানু।
শহরের একাধিক ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ বলেন, সরকারি একটি স্থা পনার মধ্যে যদি এ অবস্থা থাকে তাহলে সরকার মানুষকে সচেতন করবে কীভাবে। সরকার ডেঙ্গুর বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে বিভিন্ন ক্যাম্পেউন করলেও খোদ ভূমি অফিসের সামনে এখন রয়ে গেছে ডেঙ্গুর ঘর।
এ বিষয়ে কলাপাড়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি এস কে রঞ্জন ও রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি কবির তালুকদার বলেন, এ স্থা পনায় ফেলা ময়লা ও পুকুরে জমে থাকা কচুড়িপানায় মশা,মাছিসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর কীটপতঙ্গ জমে আছে। এগুলো অপসারণ না করলে শুধু ডেঙ্গু না, বিভিন্ন রোগের প্রাদূর্ভাব দেখা দিতে পারে।
এ ব্যাপারে কলাপাড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনুপ দাস বলেন, এ ময়লা আবর্জনা অপসাপরণে দ্রুত তহশিলদারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে মানুষ যাতে এখানে ময়লা আবর্জনা না ফেলে তাই সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হবে। এজন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে।

সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা