রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, সকাল ১১:৪৪

বরিশালে অতিরিক্ত  জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট রাকিবুলের বিরুদ্ধে অর্ধ শতাধিক আইনজীবির স্বাক্ষরিত  অভিযোগ জেলা প্রশাসক বরাবর

এস.এম. লিখন:

অভিযোগে বলা হয়, বরিশাল জেলা আইনজীবি সমিতির একজন নিয়মিত সদস্য। আমি আমার আইন পেশা সুনামের সহিত পরিচালনা করিয়া আসিতেছি। কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় আপনার অধীনস্থ বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এ.ডি.এম) জনাব রকিবুল রহমান খান সাহেব তাহার আদালতে বিগত ইং ০১/১২/২০২১ তারিখ ১১নং সিরিয়ালে এম.পি ৫৯ / ২০২০ (গৌরনদী) মামলায় আমি বাদী পক্ষের নিয়োজিত কৌশলী হিসাবে বাদী পক্ষ অনুপস্থিত থাকার সুনির্দিষ্ট কারন উল্লেখ পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সময়ের প্রার্থনা আনয়ন করি এবং উহা শুনানীর জন্য উপস্থিত থাকলেও বিজ্ঞ এ.ডি.এম সাহেব বাদীপক্ষে আমার দরখাস্ত নানা আমাকে শুনানীর সুযোগ না নিয়া মামলাটি নথি জাত করেন যাহা ন্যায় বিচারের পরিপন্থী। তাহাতে বাদীর অপূরনীয় ক্ষতি হওয়ায় আমি বিজ্ঞ আদালতকে বোঝানোর চেষ্টা করিলে বিজ্ঞ আদালত আমার সহিত কোর্ট চলাকালীন সময় অসৌজনামূলক উদাত্ত আচরন করেন।

ঐদিনই বিজ্ঞ আদালতে আমার আরও ১টি এম.পি ১০৬/২০২১ (মুলাদী) মামলাটির পুটআপ শুনানী ছিল। আমি অন্যকোর্টে ব্যস্ত থাকায় আমার চেম্বার জুনিয়র এ্যাডভোকেট ফেরদৌসী বেগম হেপী মামলাটি শুনানী করার জন্য হাজির হইলে বিজ এ.ডি.এম সাহেব আমার স্বাক্ষরিত দাখিলকৃত কোন দরখাস্তই শুনানী করবে না মর্মে প্রকাশ্য আদালতে প্রকাশ করেন এবং আমার জুনিয়ার কে নতুন করে ওকালত নামা দিয়া শুনানীর জন্য বলেন। পরবর্তীতে আমার জুনিয়র উপায়অন্ত না পাইয়া নতুন করে শুলতানা ক্রাকরে ওকালত নামায় পক্ষের স্বাক্ষর নিয়া আদালতে দাখিল পূর্বক শুনানী করে। এমনকি বিজ্ঞ এ.ডি.এম সাহেব আমার অনুপস্থিতিতে একই দিন বিজ্ঞ আদালতে বলে আমার চরিত্র হনন করে আমার নামে বাজে প্রকার কটূক্তি করে।

এ.ডি.এম সাহেবের এহেন আচরনে আমার পেশার ভাবমূর্তি ও সম্মান হানি হয়। উল্লেখ্য যে, ইতিপূর্বে এ.ডি. এম সাহেবের একাধিক আইনজীবিদের সহিতও খারাপ আচরন করে মর্মে প্রমান আছে। উল্লেখ্য যে, উক্ত আদালতের পেশকার একজন চরম দুর্নীতিবাজ। পেশকার সাহেবের কথার বাহিরে এ.ডি এম সাহেব কোন মামলার আদেশ দেন না।

অতএব, হুজুর আমি যাহাতে আমার দরখাস্তে অভিযুক্ত বিচারক (এ.ডি.এম) সাহেবের অসদাচারনের বিষয়ে সুবিচার পাইতে পারি তাহার আদেশ দানে একান্ত মর্জি হয়।

এ বিষয় এ্যাডভোকেট , হাসিনা বেগম হাসি তিনি সাংবাদিকদের বলেন বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এ.ডি.এম) জনাব রকিবুল রহমান খান সাহেব যে আচরনে আমার পেশার ভাবমূর্তি ও সম্মান হানি হয় তাই ন্যায় বিচারের জন্য তার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করিছি। তিনি আরো বলেন জেলা প্রশাসক মহাদয় ন্যায় বিচার করবে আমি আশা করি বলেন তিনি?…..।

এ বিষয় জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার এর কাছে জানতে চাইলে একাধিক বার মুঠো ফোনের মাধ্যমে কথা বলতে চাইলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

চলবে………………