মঙ্গলবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং, রাত ২:৪৯
শিরোনাম :
বরিশালের মুলাদীর ফেক আই ডি কাজিরচর নিউজ বুলেটিন এর বিরুদ্ধে থানায় জি.ডি পিরোজপুরে দুই বোনসহ তিনজনের করোনা শনাক্ত করোনার ক্রান্তিকালে মানবিকতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে পিরোজপুর জেলা পুলিশে কর্মরত ৪৬ তম ব্যাচের পুলিশ কনস্টেবলগণ করোনা আক্রান্তের হার সবচেয়ে বরিশালে কম, সর্বোচ্চ ঢাকায় ঝালকাঠির রাজাপুরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ তহবিল থেকে অসহায় দুঃস্থদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তার চেক বিতরণ জানি কিন্তু মানিনা, নীতিকে পাশ কাটিয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসা নলছিটিতে ইয়াবাসহ চার মাদক কারবারি গ্রেপ্তার দেশে করোনায় নতুন শনাক্ত ৭০৯ করোনা তহবিলে টাইগারদের ৩০ লাখ; আরও সাহায্য চাইলেন মুশফিক করোনায় থেমে নেই পদ্মা সেতুর কাজ, বসছে ২৯তম স্প্যান

পটুয়াখালীতে রের্কড রুমের দলিল উধাও, অতপর বরখাস্ত ৭ জন

বিজলী ডেক্স:

পটুয়াখালী সাব-রেজিস্টার অফিসের রেকর্ড রুমে সংরক্ষিত ৬৬ বছরের পুরনো গুরুত্বপূর্ণ দলিল উধাও হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। প্রাথমিকভাবে সন্দেহভাজন হিসেবে ওই অফিসের সাত জনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

এছাড়াও এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে যারা আগামী পনের কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলে পরবর্তী আইনি কার্যক্রম করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা রেজিস্টার মহাসীন আলম।

এদিকে, মোটা অংকের আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে এই পুরনো গুরুত্বপূর্ণ দলিল বালাম থেকে সুকৌশলে সরিয়ে নেয়া হয়েছে এবং এ ঘটনার সাথে অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বলে অভিযোগ করছেন স্থানীয়রা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পটুয়াখালী সাব রেজিস্টার রেকর্ড রুমে সংরক্ষিত ১৪ নং বালামের আমতলি অফিসের ১৯৫৪ সালের একটি দলিল উধাও হওয়ার খবরটি গত জুন মাসের প্রথম দিকে ছড়িয়ে পরে। ১৪১৪ নম্বরের ওই দলিলটি ১৪নং বালামের ১১৯ থেকে ১২২ পৃষ্ঠা অর্থাৎ চার পাতা জুড়ে।

গত ১৮ জুন বিষয়টি রেকর্ড কিপার মহিউদ্দিন জেলা সাব রেজিস্টার ও রেকর্ড রুমের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কার্তিক জোয়াদ্দারকে অবহিত করলে তিনি ২১ জুন বিষয়টি জেলা রেজিস্টার মহাসীন আলমকে লিখিতভাবে জানান। ২২ জুন এ ঘটনায় একটি আংশিক তদন্ত হয়। এ ঘটনার পর ২৮ জুন রেকর্ড কিপার মহিউদ্দিন, অফিস সহায়ক শাহজাহান, ওমেদার নাসির তালুকদার, তল্লাশিকারক বশির উদ্দিন মোল্লা ও সুজন খন্দকার নকল নবিস নাসির উদ্দিন মোল্লা ও তৌফিকুল ইসলামকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।

যদিও এ ঘটনায় সহকারী রেকর্ড কিপার খাদিজা বেগমকে অন্যত্র বদলি করা হয়। যা নিয়েও অফিস পাড়ায় কানাঘুষা চলছে। সাবরেজিস্টার কর্তৃপক্ষ এই বরখাস্তের বিষয়টিকে কর্মবিরতির আদেশ বলতে চাচ্ছেন। জেলা রেজিস্টার মহাসীন আলম জানান-এ ঘটনায় নিবিড় ভাবে তদন্ত চলছে।

অপরদিকে জেলা সাব রেজিস্টার ও রেকর্ড রুমের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কার্তিক জোয়াদ্দার জানান, “তদন্তের সময় আরও বৃদ্ধি করা হতে পারে। তাছাড়া তদন্তের স্বার্থে আরও কয়েকজনকে কর্মবিরতিতে পাঠানো লাগতে পারে”। আর সহকারী রেকর্ড কিপার খাদিজা বেগমকে কর্মবিরতি কিংবা সাময়িক বরখাস্ত না করে অন্যত্র বদলি করার ব্যাপারে তিনি বলেন, “এ ঘটনার আগেই তার বদলির আদেশ ছিল কিন্তু কাজের চাপের কারণে তাকে আগে বদলি করা হয়নি।”

এদিকে সাব রেজিস্টার অফিসেরই একটি সূত্র নিশ্চিত করে জানায়, পটুয়াখালী সাব রেজিস্টার রেকর্ড রুম থেকে দলিলসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র উধাও হওয়ার ঘটনা আজ নতুন নয়। অনুসন্ধান করলে এরকম একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দলিলাদির হদিস পাওয়া যাবেনা। একটি কুচক্রি মহলের যোগসাজশে অফিসের কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা মোটা অংকের টাকার বিনিময় এই কাজ করে আসছে।