সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ ইং, সকাল ১০:৫৯

বরিশালে আগৈলঝাড়ায় গরুর হাট নিয়ে যুবলীগ সভাপতি ও চেয়ারম্যান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ

নিজস্ব প্রতিবেদক::

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের কোরবানির পশুর হাট নিয়ে সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদার ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি সাইদুল সরদারের সমর্থকদরে মধ্যে ধাওয়া, হামলা ও পাল্টা ধাওয়ায় যুবলীগ সভাপতি সাইদুল সরদার ও ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদারসহ উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছেন।

আগৈলঝাড়া থানার ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম সুমন পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে উভয় পক্ষের লোকজনকে সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। ফের সংঘর্ষের মোকাবেলায় ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। হামলা ও পাল্টা হামলার ঘটনায় যুবলীগ সভাপতি ও চেয়ারম্যানের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সাইদুল সরদার অভিযোগে বলেন, গত তিন বছর যাবত চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদার দলের স্থানীয় নেতা কর্মীদের দূরে রেখে তার নিজের লোকের নামে কোরবানির পশুর হাটের ইজারা নিয়ে ওই হাটের টাকা আত্মসাত করে আসছে।

এই বিষয়ে স্থানীয় নেতা-কর্মিসহ লোকজন চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞেস করতে চাইলে তিনি তাদের নিষেধ করে নিজে চেয়ারম্যানের সাথে এ বিষয়ে কথা বলবেন বলে নেতা কর্মীদের আস্বস্ত করেন। সেই অনুযায়ি সাইদুল সরদার সোমবার সকালে ফোনে চেয়ারম্যানকে হাটের বিষয়ে স্থানীয়দের কিছু কথা বলার আছে জানালে চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদার তাকে লোকজন নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে যেতে বলেন।

সাইদুল সরদার ইউনিয়ন পরিষদের সামনের রাস্তায় অবস্থায় করার সময়ে ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত চেয়ারম্যানের লোকজন তার উপর অতর্কিতভাবে বাঁশ দিয়ে হামলা চালায়। তিনি আহত হওয়ায় দলের নেতা কর্মীরা উত্তেজিত হয়ে পরে। ওই হামলায় সাইদুল সরদার আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন বলেও জানান।

নিজেকে সাংবাদিকদের কাছে আহত দাবি করে ইউপি চেয়ারম্যান ইলিয়াস তালুকদার জানান, ঈদ উল আযহা উপলক্ষে রাজিহার ইউনিয়ন পরিষদ চত্তরের তিন দিনের গবাদীপশুর হাট বাসানো হয়েছে।

স্থানীয় জোনায়েত মোল্লার নামে ওই হাটের ইজারা প্রদান করেছে জেলা প্রশাসন। গরুর হাটের খাজনার টাকার ব্যপারে সোমবার সাড়ে এগারোটার দিকে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি সাইদুল সরদার তার লোকজন নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে তার কাছে জিজ্ঞাস করতে যান। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিন্ডার এক পর্যায় হামলা ও পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। এসময় পরিষদের চেয়ারসহ অন্য ভাংচুর করে হামলকারীরা।

হামলা ও পাল্টা হামলায় উভয়পক্ষের আহত মোশেদুর রহমান ডালিম, জাকির হাওলাদার, জোনায়েত মোল্লা, মফিজুল ফকির, দিদার আলম, সাব্বির ফকির রিফাত আলম হাসিবুল রহমানসহ ১০জন। আহতরা উপজেলা হাসপাতাল, স্থানীয কিনিকসহ বিভিন্ন স্থানে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে।

ঘটনার পরপরই আগৈলঝাড়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গোলাম ছরোয়ার ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। তিনি শান্তি শৃংখলা রক্ষার জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করেছেন। তিনি জানান, কোন পক্ষ থানায় কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।